1. newsjibon@gmail.com : adminsp :
শুল্ক কমানো হলেও খেজুরের দাম দফায় দফায় বাড়ছে - সুনামগঞ্জ প্রতিদিন
শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৪১ অপরাহ্ন

শুল্ক কমানো হলেও খেজুরের দাম দফায় দফায় বাড়ছে

প্রতিদিন ডেস্ক
  • বুধবার, ৬ মার্চ, ২০২৪
  • ৩২ বার পঠিত
Spread the love

রোজার খাদ্যতালিকায় অন্যতম অনুষঙ্গ খেজুর। আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ কমানো এবং বাজার তদারকিসহ সরকারের নানান উদ্যোগের পরও কমছে না এ খেজুরের দাম। কয়েকদিনের ব্যবধানে খেজুরের দাম বেড়েছে প্রকারভেদে কেজিতে ৮০ থেকে ১৫০ টাকা। ব্যবসায়ী ও আমদানিকারকরা বলছেন, দাম বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে অতিরিক্ত শুল্ক, ডলার সংকট, এলসি না পাওয়া ও সরবরাহে ঘাটতি। রাজধানীর বেশ কয়েকটি পাইকারি ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সৌদি আরবের মেডজুল, মাবরুম, আজওয়া ও মরিয়ম খেজুরের দাম এক মাসের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। জাম্বো মেডজুল মানভেদে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৬০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকায়। সাধারণ মেডজুল ১ হাজার ২৫০ থেকে ১ হাজার ৪০০, মাবরুম খেজুর ১ হাজার ১০০ থেকে ১ হাজার ৫০০, আজওয়া খেজুর মানভেদে ৯০০ থেকে ১ হাজার ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সবচেয়ে ভালো মানের মরিয়ম খেজুর বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকায়। এ ছাড়া কালমি মরিয়ম ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, সুফরি মরিয়ম ৭৫০ থেকে ৮০০, আম্বার ও সাফাভি ৯০০ থেকে ১ হাজার ২০০ ও সুক্কারি খেজুর বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকায়। তবে পাড়া মহল্লার বাজার ও দোকানে এসব দামি খেজুর বিক্রি হচ্ছে আরও ৫০ থেকে ২০০ টাকা বেশি দরে। সাধারণ মানের খেজুরের মধ্যে খুচরায় বর্তমানে প্রতি কেজি গলা বা বাংলা খেজুর বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা, জাহিদি খেজুর ৩০০ থেকে ৩২০ ও মানভেদে দাবাস খেজুর ৪৫০ থেকে ৫৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া বরই খেজুর মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪৪০ থেকে ৫৪০ টাকায়। পাইকারি বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০২৩ সালে রোজার আগে জাহেদি ব্র্যান্ডের খেজুরের দাম ছিল কার্টনপ্রতি (১০ কেজি) ১ হাজার ২৫০ থেকে ১ হাজার ৩০০ টাকা। চলতি বছরের দুই সপ্তাহ আগেও একই ব্র্যান্ডের খেজুরের দাম ছিল কার্টনপ্রতি এক হাজার ৮০০ টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বর্তমানে খেজুরের শুল্কায়ন মূল্য প্রতি টন ১ হাজার থেকে ২ হাজার ৭৫০ ডলার। ফলে শুল্ক ১০ শতাংশ কমানোর পরও খুচরা বাজারে দামে খুব একটা প্রভাব পড়ছে না। আমদানিকারকরা জানান, এমনিতেই ডলার সংকটের কারণে তারা চাহিদা অনুযায়ী খেজুর আমদানি করতে পারছেন না। এর মধ্যে প্রকৃত মূল্যের চেয়েও বাড়তি দামে শুল্কায়ন খেজুরের বাজার অস্থিতিশীল করে তুলছে। যৌক্তিক অ্যাসেসমেন্ট ভ্যালু নির্ধারণে কাস্টম কর্তৃপক্ষ, বাণিজ্য ও অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েও তারা কোনো প্রতিকার পাননি। এ ছাড়া গত ২৯ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠকে খেজুরসহ চার পণ্যের শুল্ক কমানোর নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। ওই বৈঠকের পর ব্যবসায়ীরা অনেকে বিপুল পরিমাণ খেজুর আমদানি করে বন্দরে খালাস না করে রেখে দেন। কিন্তু ৮ ফেব্রুয়ারি শুল্ক কমানোর প্রজ্ঞাপন জারির পর ব্যবসায়ীরা আশানুরূপ খেজুর খালাস করেননি। যার ফলে দামে এর প্রভাব পড়ছে। বাংলাদেশ ফ্রেশ ফ্রুটস ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম বলেন, কাস্টমস নিজেরা নিজেরা পণ্যের অ্যাসেসমেন্ট ভ্যালু করছে। গত বছর আমরা যে পণ্য ১ হাজার ডলার দিয়েছি এবার সে পণ্যের দাম ২ হাজার ৫০০ ডলার ধরেছে। আমরা ইরাক তিউনেসিয়া, আলজেরিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে খেজুর আমদানি করে থাকি। ইরাকি খেজুর ৯০০ ডলারে এলসি খুলেছি, আবর আমিরাতের খেজুর ১ হাজার থেকে ১২০০ ডলারের, আলজেরিয়া থেকে ১ হাজার থেকে ১২০০ ডলারের এলসি খুলেছি। পণ্যের কাস্টমস দিতে গিয়ে দেখি ৯০০ থেকে ১২০০ ডলারের এসব পণ্যের ভ্যালু ২ হাজার ৫০০ ডলার ধরেছে। যার কারণে খেজুরের দাম বেড়ে গেছে। এখন দাম কমানোর বিষয়টা কাস্টমসের ওপর নির্ভর করছে।

 


Spread the love
এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: জুনায়েদ চৌধুরী জীবন

© All rights reserved © সুনামগঞ্জ প্রতিদিন
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!