1. newsjibon@gmail.com : adminsp :
ভূয়া স্টাফ রিপোর্টার সেজে চাঁদাবাজী প্রতারনা ও লোক ঠগানোর অভিযোগ আব্দুল শহীদের বিরুদ্ধে - সুনামগঞ্জ প্রতিদিন
শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন

ভূয়া স্টাফ রিপোর্টার সেজে চাঁদাবাজী প্রতারনা ও লোক ঠগানোর অভিযোগ আব্দুল শহীদের বিরুদ্ধে

প্রতিদিন প্রতিবেদক :
  • মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০২৪
  • ২৩ বার পঠিত
Spread the love

সুনামগঞ্জে দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার ভূয়া স্টাফ রিপোর্টার সেজে উদ্দেশ্যমূলক চাঁদাবাজী,প্রতারনা ও লোক ঠগানোর ব্যবসা করে যাচ্ছে আব্দুল শহীদ নামের এক হলুদ সাংবাদিক। সে সুনামগঞ্জ পৌরসভার হাছননগর ময়নারপয়েন্ট আবাসিক এলাকার নিঃসর্গ ২৩ নং বাসভবনের বাসিন্দা আব্দুল মন্নানের পুত্র। জানা যায়,সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজে অধ্যয়নকালে উক্ত আব্দুল শহীদ ইসলামী ছাত্রশিবিরের রাজনীতিতে নাম লেখায়। পরে জাতীয় পার্টির ছাত্র সংগঠন জাতীয় ছাত্রসমাজে যোগদান করে। জেলা জাতীয় পার্টির সভানেত্রী সাবেক এমপি মমতাজ ইকবালের মৃত্যুর পর সে জাতীয় পার্টি ছেড়ে নাম লেখায় জাতীয়তাবাদী যুবদলে। বর্তমানে সে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সহ প্রচার সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত রয়েছে। স্বেচ্ছাসেবক দল সুনামগঞ্জ জেলা শাখার কার্যকরী কমিটিতে ৬১ নং ক্রমিকে তার নাম অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। একদিকে রাজনৈতিক দলের কর্মী অন্যদিকে সাংবাদিক নেতা সেজে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় চাঁদাবাজী চালিয়ে যাচ্ছে সে। গোপন সূত্রে জানা যায়, সুনামগঞ্জ শহরতলীর আব্দুজ জহুর সেতু ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার চালবন পয়েন্টে প্রতিদিন রাত্রে ট্রাকবাহী পেয়াজ ও চিনির গাড়ী আটকিয়ে প্রতি গাড়ী হতে ৩ হাজার টাকা রেটে চাঁদা আদায় করে উক্ত আব্দুল শহীদ। বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) দোয়ারাবাজার উপজেলার বোগলা ইউনিয়নের রিংকু বোর্ডার হাট থেকে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বাংলা টিভি ও দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার পরিচয় দিয়ে উক্ত আব্দুল শহীদ চাঁদা আদায় করে বলে স্থানীয় ব্যবসায়ী ইকবাল খান ও মশিউর রহমান জানান। সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সহ-সভাপতি মো.জসিম উদ্দিন বলেন,আমরা রিংকু বোর্ডার হাট দেখার জন্য প্রথমবারের মত যাই। সেখানে গিয়ে দেখি আব্দুল শহিদ সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নাম ভাঙ্গিয়ে বাংলা টিভি ও দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার পরিচয় দিয়ে নগদ ৩ হাজার টাকা চাঁদা নিয়ে এসেছে। যেসব নিরীহ ব্যবসায়ীরা তাঁকে প্রতিনিয়ত চাঁদা দেন তারা বলেছেন,শহীদ প্রতি হাটবারই নিয়মিত রিংকু বোর্ডারহাটে তার মোটর সাইকেলে একজন করে সহকর্মী নিয়ে আসে এবং চাঁদা নিয়ে চলে যায়। সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের একজন সভাপতি তাকে চাঁদা আনার জন্য পাটিয়েছেন বলে সে প্রেসক্লাবেরও নাম ভাঙ্গায়।
জানা যায়,গত বুধবার (২৪ মে) ২০২৩ইং সকাল ১১টায় সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আর নয় বাল্যবিয়ে এগিয়ে যাবো স্বপ্ন নিয়ে এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ ও বিধিমালা ২০১৮ অবহিতকরণ পর্যালোচনা বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। সুনামগঞ্জ জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এজেএম রেজাউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শেখ মোঃ মুহিউদ্দিন। উক্ত কর্মশালায় অংশগ্রহনের জন্য ২০ জন সাংবাদিককে আমন্ত্রণ করেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রশিক্ষক প্রেমধন সরকার পলাশ। কিন্তু প্রশিক্ষণের শুরুতে ও পরে দেখা যায়,কর্তৃপক্ষের বিনানুমতিতে ও বিনা আমন্ত্রণে আব্দুল শহীদের নেতৃত্বে কয়েকজন ভূয়া সাংবাদিক জোরপূর্বকভাবে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে অনধিকার প্রবেশ করে উপস্থিতির খাতা ও যাতায়াত খরচের তালিকায় জাল স্বাক্ষর করে বীরদর্পে চলে আসে। হাজিরা শীটের ২নং ক্রমিকে এসএটিভির জেলা প্রতিনিধি মাহতাব উদ্দিন তালুকদার,৮নং ক্রমিকে বাসস প্রতিনিধি আল হেলাল,৯নং ক্রমিকে দৈনিক যুগান্তর প্রতিনিধি মাহবুবুর রহমান পীর ঐ সভায় আদৌ অংশগ্রহন করেননি। অথচ দেখা যায় হাজিরা শীটে ও যাতায়াত খরচের ৮০০ টাকা গ্রহনের নাম তালিকায় ও স্বাক্ষরে এই ৩ জনের নাম সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে। এছাড়াও দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার কোন স্টাফ রিপোর্টার বা প্রতিনিধিকে ঐ সভায় পাটানো হয়নি। অথচ প্রতিদিন পত্রিকার ভূয়া স্টাফ রিপোর্টার সেজে হাজিরা শীটের ১৩ নং ক্রমিকের ৫নং কলামে স্বাক্ষর করেছে উক্ত আব্দুস শহীদ। ৪ নং কলামে উক্ত আব্দুল শহীদের ০১৭৬০-০৭৬৩৫৯ নং মোবাইল নাম্বারটিও উল্লেখ রয়েছে। অন্যদিকে যাতায়াত খরচ শীটে ২৪ নং ও ৩২ নং ক্রমিকে বিজয়ের কন্ঠ পত্রিকার একই নাম ২ বার ব্যবহার করে জালিয়াতি প্রতারনার আশ্রয়ে ৮০০ টাকা করে ২ বারে ১৬০০ টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক শহীদ। পাশাপাশি যাতায়াত খরচ শীটের ৩৭ নং কলামে বাসস প্রতিনিধি আল হেলাল এর স্থলে ভূয়া বাসস প্রতিনিধি সেজে জাল স্বাক্ষর দিয়ে ৮০০ টাকা হাতিয়ে নেয় উক্ত আব্দুল শহীদ। দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন ও বাসস প্রতিনিধির ভূয়া পরিচয়ে একটি সরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে ৩য় দফায় জাল স্বাক্ষর দিয়ে মোট ২৪,০০ টাকা (দুই হাজার চারশত) টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক আব্দুল শহীদ।
অনুসন্ধানে আরো জানা যায়,সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার মামলা নং ১০ (জিআর ১০/২০১৫) তারিখ ৮/১/২০১৫ইং, ধারা ১৪৩/৩৩২/৩৩৩/৩৫৩/৪২৭/১০৯ দ:বি: আইনে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বিপি নং ৭২৯১০০৬৬০৯ বাদী হয়ে উক্ত আব্দুল শহীদকে ১০ নং আসামী করে মামলা দায়ের করেন। উক্ত পুলিশ এসল্ট মামলার ১০ নং আসামী হিসেবে গত ২৩/২/২০১৫ইং সোমবার শহরের ময়নার পয়েন্টস্থিত কালা মিয়ার দোকান থেকে এসআই ফরিদ মিয়া (বিপি নং ৭৬৯৬০৫২৯৭১) এর হাতে আটক হয় সন্ত্রাসী আব্দুল শহীদ। গত ২৪/২/২০১৫ ইং থানা হতে আব্দুল শহীদকে আদালতে প্রেরণ করা হলে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট সন্ত্রাসী আব্দুল শহীদদের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। ময়নারপয়েন্টস্থিত নি:সর্গ ৯ নং বাসভবনের বাসিন্দা রাশিদ আলীর পুত্র আব্দুল করিম বাদী হয়ে দন্ডবিধি আইনের ৩২৪/৩০৭/৩৭৯/৪২৭/৫০৬ ধারায় আব্দুল শহীদকে ৩নং আসামী করে সুনামগঞ্জ সদর থানায় মামলা নং ২ জিআর (৬৩/২০১৪) তাং ২/০৪/২০১৪ইং দায়ের করেন। উক্ত মামলায় বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগপত্র নং ৮৪ দাখিল করে পুলিশ। একই মহল্লার মৃত আছমত আলীর পুত্র মোঃ ফারুক মিয়া গত ২৫/৬/২০১৪ইং তারিখে দন্ডবিধি আইনের ৪০৬/৪১৭ ধারায় প্রধান আসামী করে প্রতারক শহীদকে একটি পিটিশন মামলায় আসামী করেন। সুনামগঞ্জ সদর থানার মামলা নং ২২ তাং ১৮/০৭/২০১৩ইং ধারা ৩২৪/৩০৭/৩৭৯/৪২৭/৫০৬ দঃ বিঃ এর এজাহারভূক্ত আসামীও আব্দুল শহীদ। সুনামগঞ্জ পৌরসভার পূর্ব সুলতানপুর আবাসিক এলাকার সামসুল হক এর স্ত্রী রেজিয়া খাতুন বাদিনী হয়ে উক্ত আব্দুল শহীদকে আসামী করে গত ৪/১২/২০১২ইং সুনামগঞ্জ সদর থানায় মামলা নং ৫ (জিআর ২৮১/১২) ধারা ৪৪৮/৩২৩/৩২৫/৩০৭/৩৫৪/৪২৭/৩৭৯/৩৪ দঃ বিঃ দায়ের করেন। জেলা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ আব্দুল মতিন কর্তৃক দায়েরকৃত সুনামগঞ্জ থানার মামলা নং ১৯ তাং ২৩/০৭/২০১২ইং ধারা ৩৩২/৩৩৩/৩৮০/৫০৬ দঃ বিঃ এর ১২ নং এজাহারভূক্ত আসামী আব্দুল শহীদ। ধর্মপাশা উপজেলার সেলবরষ গ্রামের জনি মিয়ার স্ত্রী আছমা বেগম বাদিনী হয়ে গত ১/৩/২০১১ইং তারিখে বাদিনীর পিতা রিক্সাচালক খাইরুল ইসলামের রগ কর্তনের ঘটনায় সুনামগঞ্জ সদর থানায় উক্ত আব্দুল শহীদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। দীর্ঘ ৪০ দিন চিকিৎসাধীন থাকার একপর্যায়ে প্রাণে হত্যার ভয়ে দায়েরকৃত অভিযোগ প্রত্যাহার করেন অসহায় রিক্সাচালক খাইরুল ইসলাম। সুলতানপুর হাছননগর এলাকার বাসিন্দা মোঃ মাকছুদুল আলম কর্তৃক দায়েরকৃত সুনামগঞ্জ থানার মামলা নং ৮ (জিআর ১৬৩/২০১১) ধারা ১৪৩/৪৪৮/৩২৩/৩৭৯/৪২৭/৫০৬ দঃ বিঃ এর ১০ নং এজাহারভূক্ত আসামী আব্দুল শহীদ। এই মামলাটি তদন্ত করেন এস আই আব্দুল লতিফ তরফদার। এছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারী মোঃ শাহজামাল,ভিকটিম বাদিনী সুমী সরকার,মুক্তিযোদ্ধার সন্তান নাদিম মিয়া বিভিন্ন সময়ে আমল আদালতে ও থানা পুলিশে একাধিকবার উক্ত আব্দুল শহীদের বিরুদ্ধে পিটিশন মামলা,লিখিত অভিযোগ ও জিডি দায়ের করেন। ভূক্তভোগীরা বলেন ০১৯২৫-৮২৭৯২৭ ও ০১৭৬০-০৭৬৩৫৯ নাম্বারের সকল কল বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা করলে এবং গ্রামীন ফোনে সংযুক্ত বিকাশ নাম্বারের লেনদেন এর বিবরণ পাওয়া গেলে উক্ত আব্দুল শহীদের চাদাবাজী ও ব্ল্যাকমেইলের রহস্য উদঘাটিত হবে। গত কয়েক বছরে চাঁদাবাজীর টাকা দ্বারা সোনালী ব্যাংক সুনামগঞ্জ শাখার ব্যাংক হিসেবে ২০ লাখ টাকা জমা করেছে আব্দুল শহীদ। প্রতিদিন শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সংলগ্ন তোফাজ্জল মিয়ার দোকান থেকে স্থানীয় বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা সংগ্রহ করে এসব পত্রিকায় যাদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করা হয় সেসব লোকদের কাছে ধর্না দিয়ে পত্রিকায় কাউন্টার সংবাদ প্রকাশের কথা বলে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয় লক্ষ লক্ষ টাকা। শান্তিগঞ্জ,জগন্নাথপুর ও সুনামগঞ্জ সদরসহ বিভিন্ন উপজেলায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের পিআইসির কাজ পরিদর্শনের নামে পিআইসির লোকজনের কাছ থেকে বখরা আদায় করে বেড়ায় সে। বিভিন্ন সময় বিজয়ের কন্ঠ পত্রিকার নাম ভাঙ্গিয়ে টাকা গ্রহন করলেও ঐ পত্রিকায় পিআইসির কার্যক্রমের কোন সংবাদ প্রকাশ করেনা। বিজয়ের কন্ঠ পত্রিকার সম্পাদক জেএ কাজল খান এর কাছে আব্দুল শহীদের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমরা আর্থিক অনটনের কারণে অনেক সময় নিয়মিত পত্রিকা প্রকাশ করতে পারিনা। অথচ যাদেরকে সরলমনে পত্রিকার প্রতিনিধি নিয়োগ করি তারা পত্রিকার নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজী করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে সরলপ্রাণ লোকজনকে প্রতারিত করে। অভিযোগ পেলে আব্দুল শহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন বলে তিনি প্রতিশ্রুতি দেন। দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার বার্তা সম্পাদক আল হেলাল ও নির্বাহী সম্পাদক আনিসুজ্জামান ইমন বলেন,আব্দুল শহীদ আমাদের পত্রিকার কোন স্টাফ রিপোর্টার,প্রতিনিধি বা কর্মচারী কোনটাই নয়। তার ব্যাপারে সকলকে সতর্ক হওয়ার আহবাণ জানান তারা।


Spread the love
এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: জুনায়েদ চৌধুরী জীবন

© All rights reserved © সুনামগঞ্জ প্রতিদিন
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!