1. newsjibon@gmail.com : adminsp :
নদীর পেটে সদরপুর গ্রাম-আতঙ্কে নির্ঘুম রাত্রিযাপন - সুনামগঞ্জ প্রতিদিন
বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন

নদীর পেটে সদরপুর গ্রাম-আতঙ্কে নির্ঘুম রাত্রিযাপন

  • বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ, ২০২৩
  • ২৪০ বার পঠিত
Spread the love

 

নোহান আরেফিন নেওয়াজ, শান্তিগঞ্জ: রাক্ষুসে নাইন্দা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গনে নিশ্চিহ্নের পথে সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের শতবর্ষী জনপদ সদরপুর গ্রাম। নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে ইতোমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে গ্রামের অনেক ঘরবাড়ি, সড়ক, ফসলী জমিসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। অব্যাহত ভাঙ্গন থেকে বাদ যায়নি সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কে অবস্থিত সদরপুর ব্রিজও। নদী ভাঙ্গছে প্রতিদিন যোগ হচ্ছে একেক জনের বসতঘর। ভাঙ্গন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটছে নাইন্দা নদীর উত্তর-দক্ষিণ পারে বসবাসরত প্রায় অর্ধশত পরিবারের। ভাঙ্গন রোধে যথাযথ প্রদক্ষেপ গ্রহণ না করলে নদীর রাক্ষসী ভাঙ্গনের কবলে বিলীন হয়ে যেতে পারে অনেক পরিবারের মাথা গোঁজার একমাত ঠাঁই।
সরেজমিনে দেখা যায়, শান্তিগঞ্জের জয়কলস ইউনিয়নের নাইন্দা নদীর উত্তর-দক্ষিণ অংশের তীরবর্তী সদরপুর গ্রামের প্রায় অর্ধশত পরিবার নদী ভাঙনের কারণে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। এরমধ্যে নদী ভাঙনে ঘরবাড়ি নদী গর্ভে চলে যাওয়ায় অন্যত্র আশ্রয় নিতে হয়েছে গ্রামের ৭ টি পরিবারের। অর্থাভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারছেন না ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো।
ভাঙ্গনের ঝুঁকিতে রয়েছে অনেক বসতভিটা। একাধিক বসত ভিটেতেও ধরেছে বড়-বড় ফাটল। যেকোনো ধসে যেতে পারে। ঘটতে পারে প্রানহানি।
বিলীন হওয়ার পথে এই অসহায় পরিবারগুলো প্রতিনিয়ত ছেলে মেয়ে নিয়ে দুশ্চিন্তা দিন অতিবাহিত করলেও কোনো প্রকারের জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কেউ এসে তাদের খোঁজ নিচ্ছে না বলেও অভিযোগ তাদের। এদিকে নদীর ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করলেও পানি উন্নয়ন বা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিরোধ কোনো ব্যবস্থ্ নিতে দেখা যায়নি।
উপরন্তু সেচ প্রকল্পের নামে ভাঙ্গন এলাকা থেকে দুটি দমকল দিয়ে পানি তোলা হচ্ছে অবিরত। সবমিলিয়ে ভাঙন দুশ্চিন্তায় দিশেহারা হতে হচ্ছে এখানে বসবাসরত পরিবারগুলো।
নদী ভাঙনে ভুক্তভোগী আলমগীর মিয়া জানান, যেভাবে নদী ভাঙন হচ্ছে এতে আমাদের এখানে অবস্থান করা প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমার বসতবাড়ি হয়তো আজ বা কাল তলিয়ে যেতে পারে। ঘর তলিয়ে গেলে যাওয়ার কোনো জায়গা নেই আমার। আমি দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালাই। জায়গা কেনার সামর্থ্যও আমার নেই। কোনো সহযোগিতা-ও পাচ্ছিনা। ছেলে-মেয়ে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি কখন সবকিছু নদীতে তলিয়ে যায়! আমরা সরকারের কাছে সাহায্য চাই।
নদী ভাঙনে আরেক ভুক্তভোগী সেলিনা বেগম জানান, আমরা অসহায় অবস্থায় এখানে আছি। ছেলে সন্তান নিয়ে নির্ঘুম রাত কাটছে আমাদের। কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই। আমার স্বামী দিনমজুরের কাজ করেন। এক মেয়ে ও পাঁচ ছেলে নিয়ে বড় অসহায় হয়ে পড়েছি। আমাদের থাকার মত কোনো জায়গা নেই এখান ছাড়া। সরকারের কাছে আকুল আবেদন, আমাদেরকে যেন পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে দেয়া হয়।
এব্যাপারে শান্তিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মাহবুব আলম বলেন, আমরা এই বিষয়টি নিয়ে গত তিন বছর ধরে প্রস্তাবনা দিচ্ছি সরকারের কাছে। অর্থ বরাদ্দ না আসায় আমরা কিছু করতে পারছি না। তবে সরকার টাকা বরাদ্দ দিলে আমরা কাজ করতে পারব। আমাদের অনেক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরিদর্শন করেছেন। তাদের নজরে বিষয়টি আছে। নদী ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফারুক আহমেদ বলেন, নাইন্দা নদী ভাঙনের বিষয়টি উপজেলা পরিষদের নজরে আছে। এই ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নিতে একটি আবেদনও পাঠিয়েছি। আশাকরি দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


Spread the love
এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: জুনায়েদ চৌধুরী জীবন

© All rights reserved © সুনামগঞ্জ প্রতিদিন
Theme Customized BY LatestNews
error: Content is protected !!