শিরোনাম
  জামালগঞ্জে বিএনপি নেতা এমদাদুল হক আফিন্দীর নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ :       জামালগঞ্জে হাওরে মাছের আকাল, চাষের মাছই ভরসা       ছাতক পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগে আদালতে মামলা       দিরাইয়ে মডেল মসজিদের নির্মাণ কাজে ধীরগতি       আজ পহেলা সেপ্টেম্বর রানীগঞ্জ গণহত্যা দিবস       খানাখন্দে ভরা জামালগঞ্জ কারেন্টের বাজার সড়ক,ভোগান্তি অর্ধলক্ষ মানুষের       শ্রীরামসী গণহত্যা দিবস পালিত       এক হাজার পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান করলেন মুকুট       তাহিরপুরে শহীদ সিরাজের সমাধিতে এমপি সহ নেতাকর্মীদের দোয়া       সুনামগঞ্জের সম্ভাবনাময় পর্যটন নিয়ে সরকার ব্যাপক আন্তরিক পর্যটন সচিব    


জামালগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলায় মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণে শিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত, বেকার, বিধবা, তালাকপ্রাপ্ত বেকার নারীরা আত্মকর্মসংস্থানের পথ খোঁজে পেয়েছে। মহিলা অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেকেই নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। অনেকে প্রস্তুতি নিচ্ছেন নিজেরা প্রতিষ্ঠান খোলার।
জানা যায়, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে জামালগঞ্জ উপজেলা মহিলা ও শিশু বিষয়ক কার্যালয়ের মাধ্যমে বিধবা-বেকার নারীদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ৩ মাসব্যাপী আয়বর্ধক প্রশিক্ষণ শুরু করেন। এতে ২টি ট্রেডে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এর মধ্যে সেলাই প্রশিক্ষণে ২৫ জন ও আইজিএ প্রকল্পের মাধ্যমে ব্লক-বুটিক ও হস্তশিল্প ট্রেডে ২৫ জন করে মোট ৫০ জন নারী প্রশিক্ষণ নেন। এতে তারা ভবিষ্যতে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছে।
এদের মধ্যে দক্ষিণ কামলাবাজ গ্রামের মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত জিয়াউর রহমানের স্ত্রী নাজমা বেগম বলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক অফিস থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে সেলাই কাজ করে মাসে ৪-৫ হাজার টাকা রোজগার করি। তা দিয়ে আমার ২টা মেয়েকে লেখাপড়া করাইতেছি। তাদের মানুষ করাই আমার একমাত্র স্বপ্ন। ১ মেয়ে ৯ম শ্রেণিতে, আরেক মেয়ে ৭ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে।
এছাড়াও একই গ্রামের মৃত মুখলেছুর রহমানের মেয়ে সুমী আক্তার বলেন, ৩ বছর আগে আমার বাবা মারা গেছেন। আমাদের কোন জমিজমা নেই। ৫ বোনের মধ্যে আমি ২য়। তাই বাধ্য হয়েই লেখাপড়ার পাশাপাশি উপজেলা মহিলা ও শিশু বিষয়ক অফিসের মাধ্যমে হস্তশিল্পের কাজ শিখেছি। পূর্বে আমার হস্তশিল্প বিষয়ে কোন ধারণা ছিল না। এখানে এসে আমি শতরঞ্জি হস্তশিল্প কাজ শিখেছি। এখন আমি কারও বোঝা নই। এই কাজ শিখার পর আমি অনেক অর্ডার পাচ্ছি। আমি নিজে কটি, নকশীকাঁথা, মেয়েদের জামায় বিভিন্ন ডিজাইন করে থাকি। প্রথম প্রথম করছি, তারপরও মাসে ৩-৪ টাকা আয় হচ্ছে। আশা করি সবার জানা হলে এ আয় আরও বেড়ে যাবে।
তিনি আরও বলেন, আমার মত যারা লেখাপড়া করে বেকার আছে, কোন কাজকর্ম পাচ্ছে না, তারা মহিলা ও শিশু বিষয়ক কার্যালয়ে এসে কাজ শিখে নিজে স্বাবলম্বী হতে পারবে। এবং নিজের পরিবারকে সফলতার দিকে এগিয়ে নিতে পারবে।
উপজেলা মহিলা ও শিশু বিষয়ক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের জানুযারি মাসের ১ তারিখ থেকে এ প্রশিক্ষণ শুরু করে ৩১ মার্চ শেষ হয়েছে। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এই প্রশিক্ষণ চলে। প্রতি ৩ মাস অন্তর অন্তর ৩টি প্রশিক্ষণ সম্পন্ন হয়েছে। সম্পূর্ণ আয়বর্ধক কর্মকা-ের মাধ্যমে মহিলাদের স্বাবলম্বী হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষেই সরকার এ প্রকল্প চালু করেছে।
সেলাই প্রশিক্ষক মৌসুমী সরকার জানান, প্রশিক্ষণার্থীদের বিভিন্ন ধরনের পোশাক তৈরি ও সেলাইয়ের যাবতীয় কাজ শেখানো হয়েছে। তারা এখন নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবে।
শতরঞ্জি হস্তশিল্পের প্রশিক্ষক বিপলু সরকার বলেন, প্রশিক্ষণে নকশীকাঁথা, বিছানার চাদর, টেবিল কভার, কুশন, নকশী শাড়ির কাজ শেখানো হয়। এখানে কাজ শিখে ইতিমধ্যে কয়েকজন বিভিন্ন অর্ডার পাচ্ছেন। এই প্রশিক্ষণে বেকার মেয়েদের বেকারত্ব দূর হবে। তারা কারও বোঝা হয়ে থাকবে না।
উপজেলা মহিলা ও শিশু বিষয়ক কার্যালয়ের দায়িত্বে থাকা লক্ষ্মী রানী তালুকদার বলেন, বর্তমান সরকার নারীবান্ধব সরকার। নারীদের ক্ষমতায়নের জন্য এ সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
তিনি আরও জানান, তার অধিদপ্তরের উদ্যোগে জামালগঞ্জে ২টি ট্রেডে মোট ৫০ জন করে ৬০০ জন শিক্ষিত বেকার নারী প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেছেন। এভাবে ৩ মাস অন্তর অন্তর বছরে ৪ ধাপে প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা হয়। প্রশিক্ষণ শেষে সনদপত্রসহ আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়। এদের মধ্যে অনেককে সেলাই মেশিন দেওয়া হয়েছে। যারা ক্ষুদ্র ঋণ নিতে চায় তাদেরকে অগ্রাধিকার হিসেবে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও এই প্রশিক্ষণে নারীরা স্বাবলম্বী হচ্ছেন। প্রশিক্ষণের পাশাপাশি নারীর অধিকার ও ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে ধারণা দেওয়া হয়।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এই প্রশিক্ষণ শেষে অনেক নারীই নিজ উদ্যোগে পারিবারিক কাজের ফাঁকে নিজেকে স্বাবলম্বী করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তেলিয়া গ্রামের মনিরা আক্তার তানজিলা, মল্লিকপুর গ্রামের স্বামী পরিত্যাক্তা ঝর্ণা বেগম, নয়াহালট গ্রামের স্বামী পরিত্যাক্তা লাকী আক্তার, দক্ষিণ কামলাবাজ গ্রামের ফারহানা আক্তার, সাচনা গ্রামের মমতা রানী চন্দ জানান, আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে প্রশিক্ষণকে কাজে লাগাতে না পারলেও তারা একদিন এই প্রশিক্ষণকে কাজে লাগিয়ে স্বাবলম্বী হবেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব বলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ অনেকেই স্বাবলম্বী হয়েছেন। প্রশিক্ষণার্থী যারা দক্ষতা অর্জন করেছেন, আত্মকর্মসংস্থানের জন্য তাদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও সেলাই মেশিন বিতরণ কার্যক্রমে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে




১৮ কিলোমিটার ফ্লাইওভার নির্মাণ করে সুনামগঞ্জের সাথে ধর্মপাশার যোগাযোগ স্থাপন করা হবে : পরিকল্পনা মন্ত্রী

তাহিরপুরের সাবেক এমপি কালিচরন মুচির পরিবারে এখনও টিকে আছে নাগরী ভাষা

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির প্রতিবাদ-বিক্ষোভ

আমলাদের ‘পাছায় লাথি’ ফর্মুলায় দুঃস্থ তালিকা

গরু চুরির প্রতিবাদ করতে গিয়ে জামালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষ। আহত ৪।

আওয়ামীলীগের ৬ইউনিটের সম্মেলন প্রস্ততি কমিটি দলকে গতিশীল করতে করা হয়েছে

২০ ফেব্রুয়ারি পরিকল্পনা মন্ত্রীর দিরাই সফর নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত আ.লীগ,দেখানো হতে পারে কালো পতাকা

সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালের প্রধান সহকারী ইকবাল ও তার স্ত্রীর সম্পদের উৎস কোথায় ?

সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজ পুনর্মিলনী : সদস্যসচিব এর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অভিযোগ দায়ের

এমপিরা অতঃপর ‘স্যার’ বলবেন ডিসিদের !!

error: Content is protected !!